1. chitrabani24@gmail.com : admin :
  2. qwsd@postcards-hawaii.com : leannetolmer375 :
  3. herokkazi6@gmail.com : mohidul :
  4. saddamuddinraj@gmail.com : Saddam Uddin Raj : Saddam Uddin Raj
  5. yusuf@ataberkestate.com : TimothyGuete :
সাভারে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে বিতর্কিত শিক্ষককে অপসারণ » Chitrabani 24 | online news paper
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন

সাভারে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে বিতর্কিত শিক্ষককে অপসারণ

  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০২২
  • ৩৩৪ জন পাঠক দেখেছে

মোঃমনির মন্ডল,সাভারঃ সাভার উপজেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সাভার মডেল কলেজে শিক্ষার্থীদের গত দু’দিনের তীব্র আন্দোলনের মুখে ইসলাম শিক্ষা বিভাগের শিক্ষক রমজান আলীকে পাঠদান কার্যক্রম থেকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে কয়েক ঘন্টা আলোচনা শেষে এমন সিদ্ধান্তের কথা জানান সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাজহারুল ইসলাম।

এরআগে গত দু’সপ্তাহ আগে কলেজে এসে কার্যক্রম শুরু করেন ২০০৮ সালে এক ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে বহিষ্কৃত ইসলাম শিক্ষা বিভাগের শিক্ষক রমজান আলী। সেই ঘটনায় তাকে অপসারণের ১৪ বছর পর আদালতে এখনও মামলা চলমান থাকলেও গত কয়েকদিন আগে তাকে নিয়োগ দেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দিলারা খানম। রোববার বিতর্কিত শিক্ষক রমজান আলী ক্লাস নিতে গেলে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করেন।

পরে মানবিক বিভাগের সাথে অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা একাত্মতা প্রকাশ করে রমজান আলীকে কলেজ থেকে আপসারণের দাবিতে আন্দোলনে নামের সহস্রাধিক শিক্ষার্থী। এসময় রমজান আলীকে প্রত্যাহার করে তার স্থানে দায়িত্বপালনকারী মো. আবু সাঈদকে এবং অর্থনীতি বিভাগের শোকজ করা শিক্ষক আসাদুজ্জামান জিমকেও স্বপদে বহাল রাখার দাবি জানান আন্দোলনকারীরা।

একই দাবিতে সোমবার সকাল থেকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে কারণে পরিস্থিতি যখন উত্তাল তখন বিষয়টির সুরুাহা করতে কলেজ ক্যাম্পসে আসেন সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম, সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মাইনুল ইসলামসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। পরে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে রুদ্ধধর আলোচনায় বসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

এসময় সকলের সম্মতিক্রমে ওই শিক্ষককে কলেজের পাঠদান কার্যক্রম থেকে বিরত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। একই সাথে ইসলাম শিক্ষা বিভাগে তার স্থানে দায়িত্বপালনকারী মো. আবু সাঈদ ও অর্থনীতি বিভাগের শোকজ করা শিক্ষক আসাদুজ্জামান জিমকেও স্বপদে বহাল রাখার আশ্বাস দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

এবিষয়ে সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম বলেন, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ওই শিক্ষক ক্লাস কার্যক্রমে উপস্থিত থাকতে পারবে না।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত রমজান আলী বলেন, বিষয়টি তো অনেক আগেই মীমাংসা করা হয়েছে। এখন কেন এত দিন পর এনিয়ে কথা হচ্ছে?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজটির একজন অধ্যাপক বলেন, ২০০৮ সালে টেস্ট পরীক্ষায় ফেল করা এক শিক্ষার্থীকে বাসায় নিয়ে বলাৎকার করেন শিক্ষক রমজান আলী। কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে ভুক্তভোগী বিচার চেয়ে আবেদন করলে অভিযোগটি বোর্ড পাঠানো হয়। বোর্ডে নির্দেশনা অনুযায়ী গঠিত তদন্ত কমিটি সেই ঘটনার সত্যতার পাশাপাশি আরও কয়েকজন ছাত্রের সাথে একই ঘটনার অভিযোগ পায়। এবিষয়ে অভিযুক্ত রমজান আলীকে চিঠি দিয়ে তার বক্তব্য জানতে চাওয়া হয়। কিন্তু তিনি কলেজে না এসে নিন্ম আদালতে একটি মামলা করেন। আমরা আদালতে মামলাটির জবাব দেই তবে রমজান হাজিরা না দেয়ায় মামলাটি খারিজ হয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, অভিযুক্ত রমজান পরবর্তীতে আরও একটি মামলা করেন যা এখন সুপ্রিমকোর্টে পেন্ডিং রয়েছে। সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বোর্ডের দেয়া নির্দেশনা অমান্য করে এবং জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে দ্বিতীয়বারের মতো দিলারা খানমকে অধ্যক্ষের দায়িত্ব দেন। এ সুযোগে রমজান আলী বোর্ড থেকে নাকি একটা চিঠি নিয়ে কলেজে যোগদান করেছেন। কিন্তু সেই চিঠি আমরা কেউ দেখিনি। এছাড়া যেহেতু আদালতে মামলা বিচারাধীন, সেটা নিষ্পত্তি হওয়ার আগে রমজান কলেজে যোগদান করতে পারেন না। আজকে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে তাকে প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ করছে। যেখানে একজন সমকামী শিক্ষকের কাছে ছাত্ররাই নিরাপদ নয়, সেখানে ছাত্রীরা কিভাবে তার কাছে নিরাপদ এমন প্রশ্নও করেন তিনি।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আশ্বাসের পর আগামীকাল থেকে ক্লাসে ফিরে যাবেন বলে জানিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কলেজ ক্যাম্পসের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।।।।।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

© All rights reserved © 2022 | Chitrabani 24
Theme Customized By BreakingNews